মঙ্গলবার, আগস্ট ৩, ২০২১
আজ মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
২৪শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি
Home Architecture এই গ্রামের অর্ধেক নারীই সুন্দরী ও কু’মারী, পাত্রের অভাবে হচ্ছে না বিয়ে!

এই গ্রামের অর্ধেক নারীই সুন্দরী ও কু’মারী, পাত্রের অভাবে হচ্ছে না বিয়ে!

এমন’ একটি গ্রাম যেখানে শুধু সু’ন্দরী রমণীদের ‘বসবাস। যেখানে নেই কোনো পুরুষ। আর তাই পাত্রের অভা’বে বিয়েও হচ্ছে না সেসব ‘নারীদের। কিছুদিন যাব’ত সেসব নারীরা পা’ত্রের সন্ধানে পুরুষ’দের আগমন জা’নাচ্ছেন তাদের গ্রা’মে।

দুই পাহাড়ের মাঝখানে অবস্থিত একটি গ্রাম। নাম তার নোওয়া ডে করডেরিয়ো। জায়গাটি যতটা সুন্দর এই গ্রামের মেয়েগু’লো ততটাই সুন্দর। এখানে বসবাসকারী যুবতীরা এই প্রথমবার নিজে’র যোগ্য স’ঙ্গীর খোঁ’জ শুরু ক’রেছেন। তবে শর্ত হলো বিয়ের পর বরকেও যে তার স’’ঙ্গে থাকতে হবে।

আপাতত ৬০০ জনের ‘মধ্যে ৩০০ জন নারী যোগ্য পুরু’ষদের বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছেন। গ্রামে থাকতে দে’য়ার শর্তে যে পুরুষ রাজি হবে’, তাদের স’’ঙ্গে বিয়ে করবেন’ তারা।

কারণ তারা গ্রামের বাই’রে বিয়ে করবেন না। আবার সেই গ্রামে নেই কোনো পুরুষ। তাই যেস’ব পুরুষরা তাদের স’’ঙ্গে ওই গ্রামে বসবাস করবে সু’ন্দরীরা তাদেরকেই বর বানাবে। এমনই শর্ত সেই গ্রা’মের মে’য়ে। বলছি, দক্ষিণ-পূর্ব ব্রাজিলের নোওয়া ডে কর’ডেরিয়ো গ্রা’মের কথা। এই গ্রামের বাসিন্দা ৬০০ এরও বেশি নারী।

মাত্র ‘কয়েক জন নারী বিবা’হিত। তারাও কখনো গ্রাম ছাড়েননি। স’প্তাহ শে’ষে মাত্র দুই দিনের জন্য তাদের স্বামী গ্রামে আ’সেন। ব্রাজিলে’র এই গ্রা’মের না’রীরা বি’য়ের জন্য উন্মুখ হলেও পাত্রের সংক’টে তা স’ম্ভব হয় না। গ্রা’মটিতে ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সী নারীর সংখ্যাই বেশি।

যাদের মধ্যে ৫০ শতাংশেরও বেশি কুমা’রী নারী রয়েছে। এই গ্রামের নারীদের বিয়ের জন্য অবিবাহিত ছে’লের সন্ধান পাওয়া একগাদা খড়ের মধ্যে সুঁচ খোঁ’জা মতোই ক’ঠিন কাজ। এখানকার মেয়েরা যতই চেষ্টা করুক না কেন বিয়ের জন্য তারা অবি’বাহিত ছে’লে খুঁজে পায় না।

তা না হলে যে এই সু’ন্দরী মেয়েদেরকে সারা’জীবন কুমা’রীই থাকতে হবে। এই গ্রামের বয়’স প্রায় ১২৮ বছরের মতো তার’ পরেও বাহিরের কোনো গ্রামের স’’ঙ্গে এই গ্রামে’র স’স্পর্ক নেই । এই গ্রামের প্রায় বেশি’রভাগ’ মেয়ের বয়স ১৮ থেকে ৩০

এই গ্রামের না’রীরা ছেলেদের উপর কোনোভাবেই নির্ভরশীল না। সেখানকার না’রীদেরকে আ’ত্মনির্ভরশীল করে তুলে’ছেন মা’রিয়া সেলেনা ডেলিমা। ১৮৯০ সালে এক মেয়েকে তার ইচ্ছার বি’রুদ্ধে বিয়ে দেয়া হয়। এরপরই শ্বশুর’বাড়ি ছেড়ে তিনি চলে আসেন দক্ষিণ-পূর্ব ব্রাজি’লের নোইভা ডো করডেরিয়ো গ্রামটিতে.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

কনের মৃত্যু বিয়ের অনুষ্ঠানে, শ্যালিকাকে বিয়ে করলেন যুবক

কিছুক্ষ'ণ পরেই পরি'ণয় সূত্রে আবদ্ধ হবে দুই প্রাণ, মালাবদল হবে। শুরু হয়েছে বি'য়ের অনুষ্ঠা'ন। ঠিক তখনই হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়ে'ন কনে।...

ফেঁসে যাচ্ছেন সানি লি’ওন

অর্থ জালিয়াতির অভিযোগে বর্তমান বলিউড সেনসেশন ও সাবেক পর্নতারকা সানি লিও'নের বয়ান রেকর্ড করল ভারতের ক্রাইম ব্রাঞ্চ। এক অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা তার বিরুদ্ধে...

বিয়ে’র ২ মাস পর সন্তানের জন্ম, পর’দিনই তালাক

চুয়াডাঙ্গা'য় বিয়ের দুই মাসের মাথায় এক নববধূ সন্তানের জন্ম দেওয়ায় এলাকায় চা'ঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার স্বামীর বাড়িতে ওই নববধূ শনিবার রাতে ছেলেসন্তান...

বাবার প্রে’মিকাকে বিয়ে কর’লেন ছেলে,মৃত্যুর প্রহর গুনছে মা

এই অভি'যোগে দাম্পত্যক'লহের পর বিষপান ক'রেছেন হনুফা বেগম নামের এক নারী। চুয়া'ডাঙ্গা সদর হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়'ছেন তিনি। চিকিৎসক জানি'য়েছেন, ঘাস নিধনের...

Recent Comments